1. ashikghatail18@gmail.com : ghatailmedia :
বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন

চুড়ান্ত কৌশলে আল্লাহ বিজয়ী হয় কুচক্রীদের কৌশল কখনো জয়ী হয় না।

ঘাটাইল মিডিয়া ডেস্ক
  • বাংলাদেশ সময় শুক্রবার, ১৯ জুন, ২০২০
  • ২৩৭ বার ভিউ করা হয়েছে

আজ পবিত্র জুম্মারদিন

চুড়ান্ত কৌশলে আল্লাহ বিজয়ী হয় ,
কুচক্রীরদের কৌশল কখনো জয়ী হয় না।

১৯ জুন , শুক্রবার ২০২০:

আল্লাহর আজাব ও গুজবে দুনিয়াতে ৬টি জাতি ধ্বংস হয়ে ছিল তার মধ্যে সামূদ জাতির সংক্ষিপ্ত পরিচিতি তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

হজরত সালেহ (আ)কে সামূদ জাতির কাছে আল্লাহর ধর্ম প্রচার করার জন্য প্রেরণ করেছিলেন।
হজরত সালেহ (আ)যৌবন কাল থেকেই নিজ জাতিকে তাওহিদের দাওয়াত দিতে শুরু করেন এবং একাজ করতে বাধ্যাকে উপনিত হন। সালেহ (আ) বারবার পীড়াপীড়িতে অতিষ্ঠ হয়ে তার জাতির লোকেরা ঠিক করলো যে তাঁর কাছে এমন কিছু চাইতে হবে, যা দেখাতে অক্ষম। তাই তারা দাবি করলো যে আপনি যদি সত্যিই আল্লাহর রাসূল হন, তাহলে আমাদের পাথরের পাহাড়ের ভেতর থেকে একটি ১০মাসের গর্ভবতী সবল ও স্বাস্থ্যবতী উষ্ট্রী বের করে দেখান।
সূরা আ’রাফ আয়াত-৭৭: আল্লাহ বলেন, তারা উঠনীকে হত্যা করে এবং নিজেদের প্রতিপালকের আদেশ অমান্য করে আর বলে-হে সালেহ! তুমি রাসূল হয়ে থাকলে আমাদের যে আজাবের ভয় দেখাচ্ছ,তানিয়ে এসো।
হজরত সালেহ (আ) তাদের এদাবির ওপর কঠিন শপথ ও প্রতিশ্রুতি গ্ৰহণ করলেন যে,আল্লাহ তায়ালা তাদের এই দাবি পূরণ করলে তারা ঈমান আনিবে এবং তাঁকে রাসূল হিসেবে মান্য করবে।
অতঃপর হজরত সালেহ (আ) নামাজে দাঁড়িয়ে আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করলেন। সঙ্গে সঙ্গে পাথরের পাহাড়টি নড়ে উঠলো এবং তা ফেটে একটি গর্ভবতী দুগ্ধবতী উঠনী বের হয়ে এলো। এ বিস্ময়কর ঘটনা দেখে কিছু লোক সাথে সাথে ঈমান আনলেও অবশিষ্টরা যখন ঈমান আনার ইচ্ছা প্রকাশ করলো তখন তাদের পুরোহিতরাই তাদের বিরত রাখলো।
হজরত সালেহ (আ)নিজ সম্প্রাদয়ের অঙ্গীকার ভঙ্গ করতে দেখে শংকিত হয়ে পড়লেন ।
সূরা আ’রাফ আয়াত ৭৯: আল্লাহ বলেন, এরপর সালেহ তাদের কাছ থেকে চলে গেলেন এবং বললেন, হে আমার জাতি! আমি তোমাদের কাছে নিজ পালনকর্তার পয়গাম পৌঁছে দিয়েছি, তোমাদের জন্য মঙ্গল কামনা করছি, কিন্তু তোমরা তো হিতাকাঙ্খীদের পছন্দ করো না।
তিনি আল্লাহর গজব এসে যাওয়ার আশঙ্কা করলেন।তাই সালেহ (আ)নিজ জাতিকে বললেন, তোমরা উঠটির দেখা শোনা করো,একে স্বাধীনভাবে বিচরণ করতে দাও।একে কষ্ট দিওনা, তাহলে তোমরা আল্লাহর আজাব ও গজব থেকে বাঁচতে পারবেনা।
সামুদ জাতি উঠনীর পরিচর্যা কিছু কাল করে ছিল।তারা একই কুপ থেকে উঠনী ও অন্য জন্তুদের পানি পান করাত, উঠনী সব পানি এক নিঃশ্বাসে পান করে ফেলতো।
হজরত সালেহ (আ) ফায়সালা দিলেন যে, একদিন উঠনী পানি পান করবে,অন্যদিন সম্প্রদিয়ের সবাই পানি নেবে ‌
তবে যেদিন উঠনী পানি পান সেই দিন উঠনীর দুধ দিয়ে সব পাত্র ভর্তি করে নিবে।
সার্বিকভাবে পানি উত্তোলন নিয়ে উঠনীর কিরণে অসুবিধা হচ্ছিল, অন্যদিকে এভাবে পানি পান করে উঠনী অত্যান্ত মোটাতাজা ও ভয়ংকর হয়ে উঠলো।ফলে লোকজন উঠনীর উপর ক্ষুব্ধ হয়ে সামুদ জাতির দুই যুবক উঠনীকে হত্যা করলো।

সূরা হুদ আয়াত-৬৬: আল্লাহ বলেন, যখধ আমার নিদেশ এলো আমি সালেহ ও তাঁর সঙ্গী ঈমানদারদের নিজ রহমতে রক্ষা করি, সেই দিনের অপমান থেকে, নিশ্চয়ই তোমার পালনকর্তা সর্বশক্তিমান ও পরাক্রমশালী।
হজরত সালেহ (আ)নিজ জাতির আজাবের দিনক্ষন ও নিদর্শন দেন।
প্রথম দিন-তাদের মুখমন্ডল হলুদ ও ফ্যাকাসে হয়ে যাবে।
দ্বিতীয় দিন-মুখমন্ড লাল হয়ে যাবে এবং তৃতীয় দিন ঘোরকালো হয়ে গেলো।
অতঃপর সেই দিন শনিবার প্রভাতের সময় গগন বিদারী গর্জন, মুহুর্মুহু বিজলীর চমক আর ভয়াবহ ভূমিকম্পে তাদের মৃত্যু এবং নিজ নিজ গৃহে মুখ থুবড়ে পড়ে রইলো।

শিক্ষনীয় বিষয়ঃ চুড়ান্ত বিচারে আল্লাহর কৌশল বিজয়ী হয়।

দু’একজনের কারণেই গোটা সমাজ ধ্বংস হয়ে যায়।
সমাজে শান্তি ও শৃঙ্খলা বিনষ্ট করার কারণেই আল্লাহর আজাব ও গজবে ধ্বংসপ্রাপ্ত হয় পুরো জাতি।
সুতরাং মুষ্টিমেয় কুচক্রীর বিরুদ্ধে বৃহত্তর সমাজ কে সব সময়ই সর্তক থাকতে হবে।

শুভেচ্ছান্তে———-
মোঃ নয়ন হাওলাদার

সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© All rights reserved © 2021 Ghatailmedia
Develper By Justin Shirajul